Home / উপজেলা / সীতাকুণ্ড উপজেলা আ.লীগের সম্মেলন ও আমাদের প্রত্যাশা

সীতাকুণ্ড উপজেলা আ.লীগের সম্মেলন ও আমাদের প্রত্যাশা

আতাউল হাকিম আরিফ

সীতাকুণ্ডের আওয়ামীলীগ রাজনীতিতে অনেক বাঁক পরিবর্তন হয়ে আজ একটি শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে তাতেই কোনো সন্দেহ নেই, ছোট বেলা থেকেই আমরা দেখে এসেছি আব্দুল্লাহেল মামুন, এস এস হাসান, আবুল কাশেম মাষ্টার, ডাঃ এখলাছ উদ্দিন,খাইরুল ইসলাম চৌধুরী, এডভোকেট সালাউদ্দিন হারুণ,রহমত উল্লাহ চেয়ারম্যান, সৈয়দ আবুল হোসেন,এডভোকেট ফখরুদ্দিন,নুর আহমদ, আবুল কালাম চেয়ারম্যান, গোলাম রাব্বানী, নুরুন্নবী ভূঁইয়া , আনোয়ার ইসলাম ভূঁইয়া, মোতাহের সিদ্দিকী,গোলাম রাব্বানী, কিশোর ভৌমিক,গাজী সেকান্দার,মোস্তফা কামাল চৌধুরী, আব্দুল্লাহ আল বাকের ভূঁইয়া, মহসিন জাহাঙ্গীর, নুর আলম কোম্পানি, মহিউদ্দিন আহমেদ বাবলু,মহিউদ্দিন মঞ্জু,আ ম ম দিলসাদ,হাসেম ভুঁইয়া,গোলাম মোস্তফা, তাজুল ইসলাম নিজামী, বদিউল আলম, মোঃ দিদারুল আলম ( গোলাবাড়িয়া), শামসুল আলম,আ জ ম বদরুল হাসান,জাহাঙ্গীর ভূঁইয়া, জালাল আহমদ দের মতো অনেক রাজপথের সারথীকে। তাঁদের ত্যাগ- তিতিক্ষা আমরা প্রত্যক্ষ করেছি খুব কাছ থেকেই।পতিত স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী গণআন্দোলন, ৯৬’র অসহযোগ আন্দোলন, ২০০১ সালের বিএনপি জামায়াতের পৈশাচিক শাসনের বিরুদ্ধে এদের ত্যাগ,শ্রম, মেধা কখনোই ভুলে থাকার নয়!

একই সময়ে অনেক ছাত্রনেতার ত্যাগের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রয়েছে যার বর্ণনা এত স্বল্পসময়ে উল্লেখ করা সম্ভব নয় বলে এখানে উল্লেখ করছিনা।আরো কিছু নেতা হঠাৎ করে সামনে এসেছিলেন যেমনটি বলা যেতে পারে আলেকজান্ডার চৌধুরী, কমোডোর নিজাম, সরওয়ার্দী চৌধুরী প্রমুখ যারা প্রাদপ্রদীপের আলোই আসার আগেই নিভে গেছেন!কেউকেউ রাজনীতিতে টিকে গেছেন,অনেকেই হারিয়ে গেছেন! এই হারিয়ে যাওয়াদের তালিকা একেবারেই ছোট নয়,অনেকেই কষ্টে, দুঃখে,অভিমানে বর্তমানে রাজনীতি থেকে কিছুটা দূরে আছেন কিংবা পুরোপুরিভাবে দূরে সরে গেছেন, অথচ তাঁদের ত্যাগ তিতিক্ষার বিনিময়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ আজ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত।

কিন্তু দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে কিছু নব্য আওয়ামীলীগার কিংবা চাটুকার শ্রেণীর অনেকেই আজ বড় নেতা বনে গেছেন, কেউকেউ চেয়ারম্যান, মেম্বার, কাউন্সিলর কিংবা বড় বড় পদ হাতিয়ে নিয়েছে!এই চাটুকারদের আধিপত্য কোনঠাসা অবস্থায় রয়েছে শিক্ষিত,মননশীল নেতৃত্ব। একদিকে চাটুকার অন্যদিকে চিহ্নিত সন্ত্রাসী,চাঁদাবাজদের মধ্যে কেউকেউ ওয়ার্ড, ইউনিয়ন পর্যায়ে বড় বড়,পদ হাতিয়ে নিয়েছে। তাঁদের হাতেই অর্পিত হয়েছে উপজেলা আওয়ামীগের নেতৃত্ব নির্বাচনের।

যে কথা বলছিলাম,আগামীকাল ২৯ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীঃ সীতাকুণ্ড উপজেলা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন,ইতোমধ্যে সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সীতাকুণ্ডের সর্বত্র বেশ উত্তাপ, উত্তেজনা পরিলক্ষিত হচ্ছে।সীতাকুণ্ডে ত্রিধারায় বিভক্ত আওয়ামীলীগ এর প্রার্থী একাধিক, কেউ কাউকে ছাড় দিতে নারাজ! দুঃখজনক হলেও সত্য যে অনেকেই চেয়ারম্যান, মেম্বার হয়েও পদের লালসায় সীমাহীন লেজুড়বৃত্তির মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। আওয়ামী রাজনীতির একজন শুভার্থী হিসেবে এইটুকুই বলতে পারি একই ব্যক্তিকে একাদিক পদে বিবেচনা না করে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করুণ, যারা চেয়ারম্যান কিংবা ক্ষমতার যায়গায় রয়েছে তারা যেনো কোনোভাবেই বড় পদে আসীন না হয় সেদিকে নজর রেখে ত্যাগীও মেধাবী নেতৃত্ব বিকশিত হোক এই প্রত্যাশা।

লেখক : সাংবাদিক ও কলামিষ্ট

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: