Home / ইউনিয়ন / ‘নেশা যার সমাজসেবা’

‘নেশা যার সমাজসেবা’

বিশেষ প্রতিবেদকঃ

রাজনীতিক হিসাবে সীতাকুণ্ডে ব্যাপক পরিচিত হলেও তিনি আপাদমস্তক একজন সমাজসেবক। গৃহহীনদের পূনর্বাসন, বয়স্ক নিবাস স্থাপন, পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়তে ভূমিকা পালন, মসজিদ-মাদ্রাসা নির্মাণ, সড়ক উন্নয়ন, শিক্ষার্থীদের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিতকরণসহ বহু মানবিক ও সামাজিক কর্মকান্ডে যিনি নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন। সেই আশির দশক থেকে ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করে আজ অবধি সমাজ বিনির্মাণে রেখেছেন অসামান্য অবদান। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে যিনি জীবনবাজি রেখে মাঠে ময়দানে সক্রিয় থেকেছেন। তিনি সীতাকুণ্ডের প্রিয়মুখ, সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ঘোড়ামরা জোড়ামতল এলাকার কৃতিসন্তান মোহাম্মদ আলাউদ্দিন।

পিতা মোঃ হোসেনুজ্জামান কোম্পানী ও মাতা শামসুন্নাহার এর পুত্র আলাউদ্দিনের জন্ম ১৯৭১ সালের ১ জানুয়ারি। কুমিরা আবাসিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন তিনি। সে সময় সমাজের নানা অসঙ্গতি তার ছাত্রমনকে নাড়া দেয়। অংশগ্রহণ করেন ছাত্রলীগের রাজনীতিতে। ১৯৮৭ সালে স্বৈরাচারী এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে ছাত্রনেতা হিসাবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনে রাজাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি।

পরবর্তীতে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী এ.বি.এম আবুল কাশেম মাস্টার এর পক্ষে রাজাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালে চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় এলে অনেক নির্যাতনের শিকার হন তিনি। প্রেসিডেন্ট ইয়াজুদ্দিন সরকারের বিরুদ্ধে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ১/১১তে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কারান্তরীণ থাকাকালীন তাঁর মুক্তি আন্দোলনে সেচ্ছাসেবক লীগ সীতাকুণ্ড উপজেলার সাধারণ সম্পাদক হিসাবে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন তিনি।

২০১৩ সালে ডেট লাইন ২৫ অক্টোবরে বিএনপি জামায়াতের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেন আলাউদ্দিন। সেদিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক গঠিত সন্ত্রাস দমন ও প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক হিসাবে সোনাইছড়ি ইউনিয়নের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। একই বছর ৩ নভেম্বর বিএনপি জামায়াতের অবস্থানের বিরুদ্ধে ১০টি ট্রাক যোগে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে তিনি প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। ২০১৪ ও ২০১৮ সালে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব দিদারুল আলমের পক্ষে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন।

পেশায় সুপ্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলাউদ্দিন একাধারে ১৯৮৭ থেকে ৯০ সাল পর্যন্ত ছাত্রলীগের দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯০ থেকে টানা ৫ বছর ওমান শাখা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ১৯৯৭ থেকে ২০০৩ সাল বঙ্গবন্ধু পরিষদের সোনাইছড়ি ইউনিয়ন শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। এছাড়া ২০০৩ সালে আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক ও ২০০৪ থেকে ২০১২ সাল অবধি সেচ্ছাসেবক লীগ সীতাকুণ্ড উপজেলার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। সর্বশেষ ২০১২ থেকে ২০১৯ টানা ৮ বছর আওয়ামী লীগ সীতাকুণ্ড উপজেলার অর্থ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমান সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার প্রত্যাশা রাখেন তিনি।

এতসব দায়িত্বে থেকেও সমানতালে চলছে তার সামাজিক কর্মকান্ড। এমনকি দেশে মরণঘাতি করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লেও থেমে থাকেননি তিনি। ত্রাণ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে প্রতিনিয়ত ছুটে যাচ্ছেন মানুষের দ্বারে দ্বারে। এসময় করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মাঝে বিনামূল্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও অক্সিজেন অক্সিমিটার বিতরণ করে ব্যাপক আলোচিত হন মোহাম্মদ আলাউদ্দিন।

সম্প্রতি জোড়ামতল কাজী রাস্তা উন্নয়ন কমিটির আহ্বায়ক হিসাবে প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটির জোড়ামতল হইতে চৌরাস্তা পর্যন্ত উন্নয়ন কাজে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন তিনি। কুমিরা গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়ক পারাপারে উপজেলায় বেসরকারী অর্থায়নের একমাত্র ফুটওভার ব্রিজটি তার নেতৃত্বে নির্মিত হয়। একসময় জোড়ামতল এলাকায় বহুল আলোচিত পোকা বিরোধী আন্দোলনেও নেতৃত্ব দেন তিনি। সারাদেশে ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ বৃদ্ধি পেলে এডিস মশার আক্রমণ রোধে পরিবেশবাদী সংগঠন নিট এন্ড ক্লিন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেন। ‘পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ চাই, এ শ্লোগানে দেশের সকল বিভাগে গঠিত কমিটির মাধ্যমে সংগঠনটি পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

সর্বশেষ সমাজের অবহেলিত, অসহায়, গরীব বৃদ্ধদের সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছেন তিনি। জীবনের শেষ বয়সে পারিবারিকভাবে নিগৃহীত এসব বৃদ্ধদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করতে চান মোহাম্মদ আলাউদ্দিন। এজন্যে তিনি বয়স্ক নিবাস নামে একটি মহতি প্রকল্পের কাজে হাত দিয়েছেন। ইতিমধ্যে এ প্রকল্পটি সীতাকুণ্ডে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। অনেক বিত্তবানরাও এতে সহযোগী হওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

তার ভাষায়,‘‘সমাজের যেখানে অসঙ্গতি সেখানেই আমি ছুটে যাই। বয়স, ধর্ম, বর্ণ এ সব কিছুই তখন আমার কাছে তুচ্ছ। মূখ্য হয়ে ওঠে মানবতা।’’

তার বহু সামাজিক কর্মকান্ডের মধ্যে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা ছিন্নমূল পূনর্বাসন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আল-আমিন ইসলামীয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও জোড়ামতল চৌরাস্তা জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা, চট্টগ্রাম মহানগর ছিন্নমূল বস্তিবাসী সমন্বয় সংগ্রাম পরিষদের প্রাক্তন সভাপতি, চট্টগ্রাম শুভপুর বাস ও মিনিবাস মালিক সমিতির প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম বিভাগীয় বাস মালিক ও শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বর্তমানে সীতাকুন্ড উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সদস্য এবং সীতাকুণ্ড সমিতির আজীবন সদস্য উল্লেখযোগ্য।

About msmh msmh

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: