Home / সহস্রধারা / কবিতা || ভালোবাসার মহান শক্তি || সরস্বতী আচার্য‍্য

কবিতা || ভালোবাসার মহান শক্তি || সরস্বতী আচার্য‍্য

ভালোবাসার মহান শক্তি

সরস্বতী আচার্য্য

জ্বলন্ত অনলের লাভা হয়ে ফেটে পড়ি
সবুজ প্রাণের মাঝে।
পাথরের বক্ষ চিরে ধীরে ধীরে এগিয়ে
আসি মৃত্যুর সন্নিকটে।
দাঁড়িয়ে আছি ভস্মের মাঝে
ছড়িয়ে দিয়েছি আমার রোষানল।
আমি উন্মাদ হয়ে
ধ্বংসে উঠি মেতে
বিবেকের মাংস গলে পচে যায়
চিৎকার করে উঠে বলে
থামাও,থামাও। বধিতে ওকে কেউ কি কোথা আছে?
বাতাসে ভেসে আসে
মৃতের গন্ধ
শত বিজয়ী কণ্ঠ আজ
চাপা পড়ে গেছে
স্বজন হারা আর্তনাদে।
আমি অট্টহাসি হেসে
দাঁড়িয়ে আছি ভস্মের স্তূপ ঘিরে
বাকরুদ্ধ সত্যবান নিরুপায় আজ
আমার পদতলে।
আমি তবুও নয় ক্ষান্ত
তক্ষক হয়ে হিংসার বিষ
ছড়িয়ে দি ধ্বংসের মাঝে।
চারিধারে দাউ দাউ করে উঠে জ্বলে
হিংসা লোভের শিখা।
বিদ্বেষের স্ফুলিঙ্গ গুলো মিশে যায়
নীতিবানের মৃত শরীরে।
তারা জেগে উঠে,ধেয়ে আসে
শক্তি যোগায় হাতিয়ারে।
বিকট হতে অধিক বিশালকায়
আমি উঁচু হতে উঁচুতে আরো ছেয়ে যায়।
আমি দীর্ঘশ্বাস ফেলি
আজ যেন মোর পরম তৃপ্তি।
চারিধারে শুনি ধ্বংসের হাহাকার
শান্তি,এ যেন মোর পরম শান্তি।
কিন্তু তবুও আমি নয় ক্ষান্ত
নিজেই পুড়তে থাকি , নিজের রোষানলে।
ধেয়ে যায় সুন্দর ঐ শান্ত দীঘির ধারে।
বারি ধারা ঢেউয়ে ঢেউয়ে বলিল মৃদু স্বরে
সাবধান মূর্খ!ওহে নরাধম দেখ চেয়ে
ধ্বংসের মাঝে সবুজের প্রাণ
উঠেছে কেমন জেগে।
বলিলাম, একি সম্ভব
রোষানলে আজি, ধ্বংস করিব সব।
হাসিয়া কহিল ঢেউ
পারিবেনা তুমি, কেন মিছে কর কলরব।
আমি উচ্চ স্বরে ডাকিয়া কহিলাম
কে?কে আছো আড়ালে?
কে তুমি হে মহান শক্তি?
সাড়া দাও মোরে
ধ্বংসের মাঝে কি করে বল
নব প্রাণ আজ জাগে?
দূর হতে শোনা যায়
কে যেন বলিল
ওহে ঘৃণার কান্ডারি
তুমি কখনো হবে না জয়ী।
তুমি যতবার হইবে
ধ্বংসে আত্মহারা
ভালোবাসার আপন আলয়ে
আমি ততবার বাঁধিব
প্রাণের নব ধারা।

মধ্যম মহাদেবপুর, সীতাকুণ্ড, চট্টগ্রাম।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: