Home / সহস্রধারা / অনুগল্প | পরিত্যক্ত ঘ্রাণ | শ্রাবণী মজুমদার

অনুগল্প | পরিত্যক্ত ঘ্রাণ | শ্রাবণী মজুমদার

পরিত্যক্ত ঘ্রাণ

শ্রাবণী মজুমদার

ও গলি দু’পাক দিতেই খিদেটা বেশ জমে এলো। সোজা হাঁটা দিলাম বাসার রাস্তা ধরে।মাছ,ডাল আর শুঁটকি ভর্তা। খেয়েও নিলাম গপাগপ করে।
মায়ের রান্না চমকপ্রদ! খিদের চোটে খেতে গিয়ে
খাবারটা একটু বেশিই হয়ে গেলো। বাঙালির আবার মাছ ভাত হলে জমে বেশ ভালো।

অল্প খাবার বেঁচেও গেছে। কি যে করি?
পরের বেলা তো খাওয়ায় যাবে না। এসিডিটির ভয় আছে আবার! রাস্তার মোড়ে একটা জায়গা আছে অবশ্য। ওখানে সবাই অপ্রয়োজনীয় সব কিছু ফেলে আসে।

ফেলেই দিলাম রাস্তার ওপাশে কাক পক্ষীতে খেয়ে নেবে পরে। বারান্দায় দাঁড়ালে রাস্তার ওপাশ অবদি দেখা যায়। সবে মাত্র ফেলে আসা ধবধবে সাদা ভাতগুলো ক্রমশ কালো হয়ে উঠছে গাড়ির কালো ধোঁয়ায়।

ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধার আনাগোনা দেখা যাচ্ছে
রাস্তার মোড়টায়। এপাশ ওপাশ তাকিয়ে কি যেন খুঁজে যাচ্ছে। হঠাৎ, ধপাশ করে বসে পড়লেন।
ফেলে আসা খাবারগুলোর পাশে। পরম শান্তিতে গোগ্রাসে গিলতে থাকে পরিত্যক্ত খাবারগুলো!

বলে উঠলাম

  • ছিঃ! ছিঃ! ওসব খেতে নেই

আমার আওয়াজ পৌঁছালোনা বৃদ্ধার কানে। ওটা ডাস্টবিন ছিলো। ওনার খেয়াল আটকে গিয়েছিলো পরিত্যক্ত’র ঘ্রাণে।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: