Home / সহস্রধারা / কিংবদন্তী | অনয় হাসান

কিংবদন্তী | অনয় হাসান

কিংবদন্তী

অনয় হাসান

যদি পুরো শহর খালি হয়ে যেতো,
আমি আবার সবুজ-পতাকায় লাল রেখা এঁকে দিতাম,
যাতে বর্ণাঢ্য হতো চোষক-পোষক,দেশদ্রোহের ঘেটলা লাল রক্ত!
আমি আবার সবুজ পতাকায় গুচ্ছ বটগাছ ছড়িয়ে দিতাম,
যাতে ফাঁসির মঞ্চে দোদুল্যমান হতো
ক্ষমতালোভীদের হস্ত!

যদি পুরো শহর খালি হয়ে যেতো!
আমি আবার তারুল-জারুল,হিজল,নিম,তুলসীর বীজ রুকে দিতাম,
তেঁতো আর ওষধি ঘ্রাণে মরে যেতো সব ব্যাকটেরিয়া!
আমি আবার কালোরঙ ছিটিয়ে হাইকোর্ট বানাতাম!
যাতে সমাধিত হতো ব্যাভিচারের সব কল্লা খুলি,
তৃতীর জন্মে আর অন্যায় হতোনা।

যদি আবার পুরো শহর খালি হয়ে যেতো,
আমি আবার দারিদ্র্যের করুণ দৃশ্য ভাস্কর্যে গড়তাম,
যাতে ভাষা শহীদের পার্শ্বে দাঁড়াত আমার কৃষক,শ্রমিক ভাই।
যাতে থালা হাতে দণ্ডায়মান হতো ভুখা সে মুক্তির মা!
অথচ ধনীর ঘরে আহার যায় খালে!
অথচ অর্থের জোরে মুক্তমন যে কাপুরুষ!

যদি এ শহরটা খালি হয়ে যেতো!
আমি সদ্য ঘামানো ধর্ষণকারীর হাত-পা বেঁধে উলঙ্গে-উলম্বে ঝুলিয়ে বলতাম এ তে থুঃথুঃ ছিটাও সকলে।
যেনো এক ফলক কুনজর আর না দেয় কোনো নারীর দিকে!

যদি এ শহরটা একবার খালি হয়ে যেতো!
আমি সাদা সদ্য নিষ্পাপ পায়রা উড্ডয়ন করে দিতাম,
যাতে থকথকে সাদা ডানায় স্বর্ণাক্ষরিত হতো “সোনার বাংলাদেশ”,
যেনো পায়রা উড়ে ধুয়ে মুছে দিতো সব পাপের অন্তনাম।

যদি এ শহরটা খালি হয়ে যেতো!
এ শহরের স্মৃতিসৌধে গিয়ে বলতাম,
দেখো মা জননী ফুটেছে এবার স্বাধীনতার ফুল,
দেখো ত্রিশ লক্ষ প্রাণের খুশির আর্তনাদে ফেটে যাচ্ছে কবর!
যেনো বইছে আজ মাঠ-ঘাট,নদ-নদীতে দেওয়া রক্তের তাজা দীপ্ত বাতাস!

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: